দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

মাদারীপুরে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন

Madaripur 01-10-13 (Manob Bandhan Against Rape)  (2)মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার চরদৌলতখান গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক গৃহবধুকে ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষকদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে কয়েক হাজার মানুষ।
মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে কালকিনি উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরের  চরদৌলতখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে কালকিনি উপজেলা সদরে এসে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে প্রেসক্লাবের সামনে এসে বিক্ষোভ মিছিল শেষ হয়। সেখানে মানববন্ধন করে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। মানববন্ধনে বক্তারা অবিলম্বে ধর্ষকদের  গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে। মানববন্ধন চলাকালে প্রেসক্লাবের সামনে এসে উপস্থিত হন কালকিনি উপজেলা চেয়ারম্যান মীর গোলাম ফারুক এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফজলে আজীম। তাদের কাছ স্মারকলিপি তুলে দেন বিক্ষোভকারীরা। এখানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফজলে আজীম দোষীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।
উল্লেখ্য, ৪ বখাটে কর্তৃক গণধর্ষণের মামলা ৯ (৩) ধারায় না নিয়ে ৯ (১)/৩০ ধারায় ১ জন ধর্ষণ ও তিনজনকে বানিয়ে সহযোগিতার মামলা নেয়ায় মাদারীপুরের কালকিনি থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো: নাজমুল হুদার বিরুদ্ধে ও আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে প্রতিবাদ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে চরদৌলতখাঁন ইউনিয়নের চরদৌলতখাঁন গ্রামের সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়। মামলা ও ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে পুলিশের ধাওয়া দেয়ার কথা বলে ঘরে ঢুকে একই এলাকার সজিব, কালু সরদার, আসাদ সরদার ও ছেলে হাফিজুল গৃহবধূর স্বামীর মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। তারা ঘটনা বাহিরে প্রকাশ না করার জন্য বাড়ির সামনে ধর্ষকরা পাহাড়া দিয়ে নিজবাড়ীতে ধর্ষিতার পরিবারকে জিম্মি করে রাখে। বিষয়টি ২দিন পরে ওসি নাজমুল হুদাকে জানালেও তিনি কোন পদক্ষেপ নেননি। পরে ৫দিন পরে সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ নাসিরুল ইসলামকে জানালে তিনি বুধবার কালকিনি থানা পুলিশকে নির্দেশ দিলে ধর্ষিতা গৃহবধূকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ৪ জনের বিরুদ্ধে ৯(৩)ধারায় গণধর্ষণের মামলা দিলেও ওসি তা এজাহারভুক্ত না করে ৯(১)/৩০ ধারায় ১জনকে ধর্ষণ ৩ জনকে সহযোগিতা করার অভিযোগে আসামী করে মামলা এজাহারভুক্ত করেন। এতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসী দুর্নীতিবাজ ওসির প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।
ধর্ষিতার স্বামী বলেন, ৫দিন নিজ বাড়ীতে জিম্মি থাকার পর পুলিশ আমাদের উদ্ধার করে মামলা নিয়েছে। আমার সামনে আমাকে অস্ত্র ঠেকিয়ে স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে বখাটেরা। ওসি নাকি মামলা এজাহারভুক্ত করেছে ১জন ধর্ষণ ও ৩জনকে সহযোগিতা করার, এমন ওসির বিচার দাবি চাই।
অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে উপজেলা চেয়ারম্যান মীর গোলাম ফারুক বলেন, ৪ জন ধর্ষক হলেও একজনকে ধর্ষক বানিয়ে মামলা নেয়ায় আমরা বিস্মিত। ৪ জন আসামীকেই ধর্ষণের অভিযোগে মামলা না নিলে আমরা মেনে নিব না। এর ব্যতিক্রম কিছু হলে তার দায়-দায়িত্ব আমরা নিব না।
ইউএনও মোহাম্মদ ফজলে আজিম বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত দু:খজনক। কেউ এটা মেনে নিতে পারে না। আমিও এর প্রতিবাদ করছি। ধর্ষকদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ করছি। ধর্ষকদের যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয় সরকারের পক্ষ থেকে আমি তার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।
হিন্দু কল্যাণ ঐক্যপরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ বাবু লক্ষন চন্দ্র সিকদার বলেন, আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার ও তাদের ধর্ষণ মামলায় অন্তুভ’ক্ত না করা হলে ভবিষ্যতে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।
বিক্ষোভ সমাবেশ না করার জন্য পুলিশ বিভিন্নভাবে হুমকী দিয়েছে বলে বক্তারা অভিযোগ করেন। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগনেতা সরদার মো: লোকমান হোসেন, নবগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পুলিন বিহারী সররকার, চরদৌলতখাঁন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান চাঁনমিয়া সিকদার, সাবেক চেয়ারম্যান আ: মন্নান সরদার প্রমূখ।
একজনকে ধর্ষণ ও ৩ জনকে সহযোগীতার অভিযোগে মামলায় এজাহারভ’ক্ত করার অভিযোগ স্বীকার করে কালকনি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: নাজমুল হুদা বলেন, অভিযোগ অনুযায়ী আসাদ সরদার শুধুমাত্র ধর্ষক আর বাকীরা সহযোগীতা করেছে। এরা সবাই আমাদের আসামী, তাদের গ্রেফতারের যাবতীয় প্রচেস্টা অব্যাহত আছে।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.