দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

মাদারীপুর থেকে মোবাইলে দেশব্যাপী উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীর কাছে চাঁদা দাবী, প্রতারকচক্র আটক

সংশ্লিষ্ট বিভাগ: অন্যায়-অপরাধ,আইন-শৃঙ্খলা,প্রধান সংবাদ,বিশেষ প্রতিবেদন,সব সংবাদ |

ছেলে-মেয়ে ও পরিবারের লোকজনকে অপহরণ ও হত্যার হুমকি দিয়ে ঢাকায় সরকারি-বেসকারি উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ এমনকি পুলিশের উর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকতার কাছে মোবাইল ফোনে ৫ থেকে ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীর ঘটনায় জড়িত অপহরণকারী চক্রকে মাদারীপুর থেকে আটক করেছে পুলিশ। গত দু’দিন ধরে মাদারীপুরের সহকারী পুলিশ সুপার আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে থানা পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ গোপনীয় অভিযান চালিয়ে অবশেষে গতকাল রাতে ওই চক্রের ৩ সদস্যসহ বেশ কয়েকজনকে আটক করে। আজ সকাল ১০টায় মাদারীপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে অভিনব প্রতারণরা বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

প্রতারকচক্রের কাছ থেকে ২ ডজনের বেশি মোবাইল ফোন, বেশ কয়েকটি ডিভাইস ও বিভিন্ন কোম্পানীর শতাধিক সীমকার্ড উদ্ধার করা হয়।

প্রতারকচক্রের কাছ থেকে ২ ডজনের বেশি মোবাইল ফোন, বেশ কয়েকটি ডিভাইস ও বিভিন্ন কোম্পানীর শতাধিক সীমকার্ড উদ্ধার করা হয়।

মাদারীপুর জেলা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, অভিনব পদ্ধতিতে এই চক্রের একটি অংশ ঢাকায় ও একটি অংশ মাদারীপুরে বসে মোবাইল ফোনে কল দিয়ে পুলিশের উর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তা ও তাদের বন্ধু-বান্ধব, ব্যবসায়ী এবং সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তাদের কাছে সন্ত্রাসী জিসান, মামুন ও বাবু নামে চাঁদা দাবী করে। সম্প্রতি ঢাকার উর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীর কাছে চাঁদা দাবীর ঘটনায় মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে তাদের অবস্থান সনাক্ত হয় মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার ইশিবপুর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামে। তারপর এই চক্রকে সমূলে ধরতে ২ দিন আগে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে মাদারীপুর পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ প্রদান করা হয়। ইশিবপুর ইউনিয়নের লুন্দি, মুছারকান্দি ও কেষ্টপুরা গ্রামে গত ২ দিন অভিযান চালানোর পর গতকাল রাতে ‘হ্যালো পার্টি’র ৩ জনকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। আটককৃতরা হলো কেষ্টপুরা গ্রামের এসকেন খানের ছেলে মিন্টু খান (২৭), নয়াকান্দি গ্রামের মৃত সামাদ শেখের ছেলে ইমান শেখ (২৩) ও অপর এক সহযোগী একই এলাকার মৃত হালিম মুন্সী ছেলে শাহীন আলম। তাদের কাছ থেকে ২ ডজনের বেশি মোবাইল ফোন, বেশ কয়েকটি ডিভাইস ও বিভিন্ন কোম্পানীর শতাধিক সীমকার্ড উদ্ধার করা হয়।

মোবাইলে উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা দাবীর ঘটনায় আটক প্রতারকচক্র

মোবাইলে উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা দাবীর ঘটনায় আটক প্রতারকচক্র

সংবাদ সম্মেলনে মাদারীপুরের পুলিশ সুপার খোন্দকার ফরিদুল ইসলাম জানান, টেলিফোন নির্দেশিকা ও বিভিন্ন কোম্পানীর ম্যাগাজিন-স্যুভেনির থেকে টেলিফোন নম্বর সংগ্রহ করে। তারপর টেলিফোনে কল দিয়ে বাসার কাজের মেয়ে বা অন্যদের সাথে কথা বলে এবং গোপনীয়ভাবে অনুসরণ করে কোন কর্মকর্তার ছেলে-মেয়ে কে কোথায় লেখাপড়া করে, কে কোথায় কখন যায় বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করে। পরবর্তীতে ছেলে-মেয়ে বা পরিবারের লোকজন কোথায় আছে তা ঠিক ঠিক উল্লেখ করে রেজিস্ট্রেশনবিহীন মোবাইল ফোন থেকে কল করে ‘বিকাশের মাধ্যমে’ বড় অংকের টাকা দাবী করে এবং তা না হলে তাদের অপহরণের পর হত্যা করার হুমকি দেয়।
এআইজি শহীদুল হক, ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে চাঁদা দাবীর কথা শোনা যাচ্ছে জানতে চাইলে মাদারীপুরের পুলিশ সুপার খোন্দকার ফরিদুল ইসলাম বলেন, সরাসরি তাদের কাছে নয়, তাদের বন্ধু-বান্ধব ও পরিচিতজনকে কাছে চাঁদা চাওয়ায় পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে বিশেষ অভিযানের নির্দেশ দেয়া হয়।

মাদারীপুর থেকে দেশব্যাপী চাঁদাবাজির ঘটনায় প্রথম আলোতে ২০০৯ সালের ৫ জুলাই প্রকাশিত প্রতিবেদন

মাদারীপুর থেকে দেশব্যাপী চাঁদাবাজির ঘটনায় প্রথম আলোতে ২০০৯ সালের ৫ জুলাই প্রকাশিত প্রতিবেদন

মাদারীপুরে আটককৃতরা রাজৈরের মিন্টু খান পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, ইতিমধ্যে তাদের হুমকিতে ভয় পেয়ে ‘মোবাইলে বিকাশের মাধ্যমে’ বড় অংকের টাকা চাঁদা দিয়েছেন বেশ কয়েকজন যুগ্ম-সচিব, উপ-সচিব, হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের কয়েকজন ব্যারিস্টার ও বড় বড় ব্যবসায়ী। তাদের এলাকায় এ ধরণের অর্ধশতাধিক চক্র রয়েছে।
প্রতারকচক্র ধরতে অভিযানের নেতৃত্বে থাকা মাদারীপুরের সহকারী পুলিশ সুপার আবু বকর সিদ্দিক সংবাদ সম্মেলনে জানান, মোবাইলের সাথে একটি আলাদা ডিভাইস লাগিয়ে এই প্রতারকচক্র অব্যবহৃত সিমকার্ডকে না খুলে ইনটেক অবস্থায় ব্যবহার করে। এছাড়া তারা একজনের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে অন্যজনকে কল দিতে পারে। এছাড়া মাদারীপুরের রাজৈরের দু’টি ইউনিয়নের ৫টি গ্রামে এ ধরণের অর্ধ-শতাধিক প্রতারকচক্র আছে। এই ঘটনায় মোবাইল ফোন কোম্পানীর রেজিস্ট্রেবিহীন সীমকার্ড চালু না করাসহ তাদের বিভিন্ন ভূমিকা নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা এবং আগামীতে অন্য প্রতারকচক্রকে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *