দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

মাদারীপুরের আরএফসি’তে খাওয়ানো হচ্ছে পঁচা-বাসি খাবার

সংশ্লিষ্ট বিভাগ: গুরুত্বপূর্ণ খবর,প্রধান সংবাদ,সব সংবাদ |

Madaripur RFC-01জহিরুল ইসলাম খান: রোজার সন্ধ্যায় ইফতারের পর গ্রাহকদের কাছে চাহিদা কম থাকায় আগের দিনের ভাজা গ্রিলসহ বিভিন্ন চিকেন (মুরগি) ভাজা আইটেম রেখে দেওয়া হচ্ছে পুরানবাজারের আরএসসি (রাজধানী ফ্রায়েড চিকেন) নামের খাবার দোকানে। গত দুই সপ্তাহ ধরে গ্রাহকদের অভিযোগ ও বিশেষ অনুসন্ধানে জানা গেছে এসব তথ্য। তবে দোকান কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।
ঢাকা থেকে আগত জামিলুর রহমান নামের এক চাকুরিজীবী মাদারীপুরের পুরানাবাজারে ঘুরতে গিয়ে গত ১৯ জুন রাতে এক প্যাকেট গ্রিল কিনে নেন। পরে খেতে গিয়ে তাতে গন্ধ টের পান।
তিনি বলেন, বাইরে থেকে জাক-জমক দোকান থেকে মনে করেছিলাম বেশ ভালোই হবে। তবে খেতে গিয়ে মনে হলো মুরগিগুলো আগের রাতে গ্রিলে পুড়িয়েছিল। বিক্রি না হওয়ায় পরের দিন আবার পুড়িয়ে বিক্রি করছে।
একই ধরণের অভিযোগ জিএম রসুল নামে মাদারীপুরের এক কলেজছাত্র। রাতে আরএফসিতে মুরগির মাংস (গ্রিল) খেতে গিয়ে পঁচা-বাসি হিসেবে টের পায়। তবুও টাকা খরচ করে কিনেছে তাই খেয়ে আসতে বাধ্য হয়।
তার দাবী আমি প্রথমে খাবার প্রদানকারী ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসা করলাম। সে কোন জবাব দিতে পারল না। কাউন্টারে বসা ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসা করলাম তিনি বললেন ঠিক আছে। কি আর করা। আর যাব না এ ধরণের খাবার খেতে।
গত দুই সপ্তাহে এ ধরনের অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, দোকানের সামনের দিকে গ্রিলে মুরগি ঝলসানোর মেশিন। রাতে প্রতিদিন অন্ততপক্ষে ৫ থেকে ৬টি মুরগি অবশিষ্ট থাকে। এগুলো ভেতরে নিয়ে রেখে দেয়া হয়।
মাদারীপুরের পুরানবাজারের বাসিন্দা রানা মোল্লা বলেন, আমি এগুলো খাই না। ভেতরে রান্না-বান্নার কাজ-কর্ম দেখে এখন আর খেতে ভক্তি হয় না। যদি সবাই এই রান্না-বান্নার পরিস্থিতি দেখতো তাহলে কেউ এগুলো খেত না। সবাই যখন মজা করে খাই আমি তাদের দেখে হাসি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মাদারীপুরের একাধিক চিকিৎসক বলেন, একদিনের ঝলসানো মাংস রেখে দিয়ে পরের দিন আবার গরম করলে খেতে ভালো লাগে ঠিকই কিন্তু এগুলো স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এছাড়া এসব খাবার সুস্বাদু করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কেমিকেল ব্যবহার করা হয় যা দীর্ঘদিন খেলে শরীরের জন্য বড় ধরনের ঝুকি তৈরি করতে পারে।
টিআইবি মাদারীপুরের সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)-এর সদস্য এনায়েত হোসেন নান্নু বলেন, এসব দোকান থেকে আমি খাবার কিনে এনেছিলাম। কিন্তু তা পঁচা-বাসি হওয়ায় খেতে পারিনি। খাদ্যদ্রব্যের মানের ব্যাপারে খোঁজ-খবর প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

One Response to মাদারীপুরের আরএফসি’তে খাওয়ানো হচ্ছে পঁচা-বাসি খাবার

  1. দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।

    আসাদ
    ২৯-০৬-২০১৬ at ১:৩৭ পূর্বাহ্ণ
    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *