দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

ধীরগতিতে চলছে ফোর লেনের কাজ, জনদুর্ভোগে চরমে

সংশ্লিষ্ট বিভাগ: প্রধান সংবাদ,মাদারীপুর,সব সংবাদ |

বিশেষ প্রতিবেদক: মাদারীপুর-শরীয়তপুর-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কে ফোর লেন সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে। তবে কাজের ধীরগতি আর অপরিচ্ছন্ন অবস্থা থাকায় সাধারণ মানুষের জনজীবন বির্পন্নতায় পরিনত হয়েছে। তবে সমস্যা সমাধাণের অশ্বাস দিয়েছেন সড়ক বিভাগ।
জানা যায়, গত চলতি অর্থ বছরে ৮৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫টি প্যাকেজে মাদারীপুরে শুরু হয় ফোর লেন ও টু লেনের কাজ। মাদারীপুরের মস্তফাপুর থেকে ডিসির ব্রিজ এলাকা পর্যন্ত ৭ কি.মি ফোর লেন এরপর খোয়াজপুর পর্যন্ত ৪ কি.মি হবে টু লেনের নির্মাণ কাজ। চলতি অর্থ বছরে কাজটি সমাপ্ত হওয়ার কথা থাকলেও বর্তমানে ৩০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। শুরু থেকে দীর্ঘ ১১ কি.মি সড়কের উন্নয়ন কাজ ধীর গতিতে চলায় জন দুর্ভোগ পৌছেছে চরমে। প্রতিদিনই দুর্ভোগে পড়ছে এ রুটে হাজার হাজার পথচারী, যাত্রী ও চালকরা। বৃষ্টি ও রোদে এ দুর্ভোগ বেড়ে যায় কয়েকগুণ। এ অবস্থায় সড়ক বিভাগের নজরদারীকে দুষছেন সবাই।
রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়া ভুক্তভোগী শাহাদাৎ আকন বলেন, এ সড়কে আমাদের আসতেই ইচ্ছে করে না। জরুরী কাজ ছাড়া এ সড়কে আসা যেন দায় হয়ে দাড়িয়েছে। প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে আমরা কয়েক হাজার স্কুল, কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীসহ সাধারণ জনগন চলাচল করি। কিন্তু বর্তমানে রাস্তায় এতো ধূলাবালি যে পথ দিয়ে হেটে গেলে পোষাক অপরিচ্ছন ও মাথার চুল সাদা হয়ে যায়। তিনি আরও বলেন এতো ধূলাবালীতে আমাদের শরীর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে।
এ বিষয়ে জেলা সড়ক বিভাগের প্রকৌশলী মো. আবদুর রহিম বলেন, মাদারীপুরে আঞ্চলিক মহাসড়ক নির্মানের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে। তবে বৃষ্টি কারণে কিছু স্থানে কাজের সমস্যা হচ্ছে। তবে সেগুলো সমাধাণের দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। রাস্তা ধুলা বালী আর অপরিচ্ছনতা কথা জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, জেলার উন্নয়ন হতে হলে উন্নয়ন কাজের আগে কিছু ছোট বড় সমস্যা হতেই পারে। তবে রাস্তা ধুলা বালি কমাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *