দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

গ্রীষ্মে আগাম ফুটে ঝরে গেছে কদম, বর্ষায় গাছ ফুলশূন্য

সংশ্লিষ্ট বিভাগ: গুরুত্বপূর্ণ খবর,পরিবেশ-প্রতিবেশ,প্রধান সংবাদ,সব সংবাদ |

জহিরুল ইসলাম খান: বর্ষার ফুল কদম। বর্ষা ঋতুর শুরুতেই কদম ফুল ফোটে এবং বর্ষার শেষই তা ঝরে যায়। কিন্তু এ বছর কদম ফুল ফুটেছে গ্রীষ্মে অর্থাৎ বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসেই আর বর্ষার আগেই তা ঝরে গেছে। এখন বর্ষার শুরুতে মাদারীপুরসহ মধ্যাঞ্চলের গাছে গাছে শুধু ফুল ঝরে যাওয়ার কদমের গোটা। প্রকৃতিপ্রেমী সচেতন মানুষের দাবী সারা দেশেই যদি এমন অবস্থা হয় তাহলে জলবায়ু পরিবর্তনের এ ধরনের বিষয় আমলে নিয়ে পরিবেশবিদদের গভীরভাবে চিন্তা-ভাবনা করা উচিত।
মাদারীপুরের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের প্রধান কেন্দ্র স্বাধীনতা অঙ্গনের পাশে বিশাল এই কদম গাছটিতে প্রতি বছরই প্রচুর ফুল ফুটতো। কিন্তু এবার বর্ষার অনেক আগেই বৈশাখ মাসে কদম ফুটে জ্যৈষ্ঠ মাসের মধ্যেই গাছটির কদম ফুল ঝরে গেছে। বর্ষায় তাই গাছে কদম ফুল দেখতে না পেয়ে উদীচী মাদারীপুর জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন এলিন বলেন, বিগত বছরগুলোতে বর্ষার অনুষ্ঠান করতাম এই গাছের কদমফুল দেখে। এবার আমরা গাছে বর্ষায় ফুল পাই নি। চৈত্রের অন্যান্য আগুনরঙা ফুলের সাথে সাথে কদম ফোটায় সকলের অগোচরেই থেকে গেছে। এটা বৈশ্বিক আবহাওয়া পরিবর্তনের প্রভাব বলেই আমাদের ধারণা।
মাদারীপুরে গানের প্রশিক্ষক ও রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক নন্দিনী হালদার বলেন, ‘বাদলও দিনের প্রথমও কদমও ফুল’-জনপ্রিয় এই গানটির মত প্রাকৃতিক অবস্থা কিন্তু এবার বর্ষা মৌসুমে নেই। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এই গানে বলেছেন, আমি দিতে এসেছি শ্রাবণেরও গান। অথচ কদম ফুল এবার আষাঢ়-শ্রাবণের আগেই বৈশাখের শেষে ফুটে জ্যৈষ্ঠের শুরুতে ঝরে গেছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, মাদারীপুর জেলা পরিষদের সামনে, জেলা শিল্প কলা একাডেমির পাশে, পাঠককান্দি আশ্রমের ভেতরের কদমগাছগুলোতেও একই অবস্থা। এসব জায়গাতেও বর্ষার আগেই আগাম কদম ফুল ফুটে ঝরে গেছে। তাই এবারের বর্ষায় কদম ফুলের সৌন্দর্য ও মনকাড়া ঘ্রাণ থেকে বঞ্চিত সবাই।
একটি ওষুধ কোম্পানীতে কর্মরত জয়ন্ত মজুমদার বলেন, জেলা পরিষদের সামনে বড় একটি কদম গাছসহ এর আশ-পাশে অনেকগুলো কদমগাছ আছে। অথচ কোনটিতেই কদম ফুল নেই। বর্ষায় এখানে কদমফুল না দেখতে পেয়ে হতাশ।
মাদারীপুর জেলার উল্লেখযোগ্য প্রায় সব স্থাপনার পাশেই ছোট-বড় কদম গাছ রয়েছে। জেলার প্রত্যন্ত প্রায় সব এলাকার কদম গাছই ফুলশূন্য। র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পের সামনে প্রধান সড়কের পাশেও বিশাল একটি কদম গাছ। বর্ষার আগমনের আগে মাদারীপুর শহরের প্রধান সড়কের পাশে বিশাল ওই গাছটিতে বেশ কদম ফুটেছিল। এখন সেটিও ফুলশূন্য।
মাদারীপুরের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও সাহিত্যিক বাশার মাহমুদ বলেন, স্থানীয় সচেতন প্রকৃতিপ্রেমী মানুষের সাধারণ তথ্য অনুযায়ী মাদারীপুর মূল শহরেই রয়েছে কয়েক হাজার কদম গাছ। আর পুরো জেলায় হাজার হাজার। জেলার সব এলাকার গাছেই এখন একটিও ফুটন্ত কদম নেই, রয়েছে আগাম ফোটা কদমের গোটা। এতে বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন কবি-সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ। বর্ষায় কদম নেই, তাই বলা যায় অবশ্যই প্রকৃতির পরিবর্তন হয়েছে।
মাদারীপুর পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক সুবল বিশ্বাস বলেন, এদিকে মাদারীপুরের প্রকৃতিপ্রেমী সংগঠনের সদস্যরা দেশের মধ্যাঞ্চলের আশ-পাশের জেলায় খোজ নিয়ে জানতে পেরেছেন যে, বর্ষার অনেক আগেই কদম ফুল ফোটার ব্যাপারটি এ বছর যে শুধুমাত্র মাদারীপুরেই ঘটেছে তা কিন্তু নয়। তাদের দাবী, যদি সারা দেশেই এমন অবস্থা হয় তাহলে প্রকৃতি ও পরিবেশের ক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনের এই বিষয় আমলে নিয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে বা পরিবেশবিদদের আরো গভীরভাবে চিন্তা-ভাবনা করা উচিত।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *