দৈনিক ২৪ ঘন্টা, সপ্তাহে ৭ দিন সর্বশেষ সংবাদ নিয়ে

মাদারীপুর ২৪ ডটকম

Ruposhi Online

শিক্ষামন্ত্রী ঘোষিত ৫ লাখ টাকা কি পাবেন না মাদারীপুরে প্রশ্ন ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দেয়া ব্যক্তি!

সংশ্লিষ্ট বিভাগ: গুরুত্বপূর্ণ খবর,প্রধান সংবাদ,সব সংবাদ |

জহিরুল ইসলাম খানপ্রশ্নপত্র ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দিতে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ কর্তৃক ৫ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণার ৩ দিনের মাথায় বুধবার সকালে মাদারীপুরে উত্তরসহ প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টাকারী এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে ধরিয়ে দেয়ার ঘটনায় জন লিটন বৈরাগী নামের একজন সচেতন এনজিও কর্মী পুরস্কার পাবেন কি না এই আলোচনা এখন সর্বত্র।
উল্লেখ্য, গত ৪ ফেব্রুয়ারি রবিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে শিক্ষা মন্ত্রী ৫ লাখ টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দেন।
বুধবার সকালে ঢাকা থেকে কুয়াকাটাগামী ঈগল পরিবহনের এক যাত্রী মোবাইল ও ল্যাপটপের মাধ্যমে ফেসবুকে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টা করলে বিষয়টি টের পান পাশের যাত্রী। তিনি বিষয়টি মোবাইল ফোনে মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলামকে জানালে তাৎক্ষণিক প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বাসটিকে আটকে নির্দেশ দেন। এভাবেই একজন সচেতন ব্যক্তির সাহসিকতায় ধরা পড়ে প্রশ্নপত্র ফাঁসচক্রের একজন। প্রশ্ন ফাসকারীর নাম জোবায়দুর, সে ঢাকার উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।
মাদারীপুরের জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকাল সাড়ে ৯ টায় জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলামের মোবাইলে ফোন আসে যে কুয়াকাটাগামী ঈগল পরিবহনের এক যাত্রী ফেসবুকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টা করছে। ঈগল পরিবহনে ওই প্রশ্ন ফাঁসকারীর পাশের যাত্রী এনজিও কর্মী জন লিটন বৈরাগী তাকে ধরে জেলা প্রশাসককে ফোন করেন। জেলা প্রশাসক তাৎক্ষনিকভাবে  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সৈয়দ ফারুক আহম্মদ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আল মামুনসহ পুলিশ নিয়ে মস্তফাপুর বাসস্টান্ডে গিয়ে বাসটি থামান। তার কাছে থেকে উদ্ধার হওয়া মোবাইল ও ল্যাপটপ যাচাই করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। পরে আজকের পরীক্ষার প্রশ্নের সাথে ফাঁসকৃত প্রশ্নের হুবহু মিল পাওয়া যায়। একই সাথে প্রশ্নের উত্তরও পাওয়া যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা গেছে, আটককৃত জোবাইদুল ইসলাম ওরফে মিঠু বরগুণার আমতলী উপজেলার সবজুবাগের গ্রাম-পুলিশ সাত্তার চৌকিদারের ছেলে এবং ঢাকার উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই চক্রের সাথে জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।
শিক্ষামন্ত্রী ঘোষিত পুরস্কারের ব্যাপারে জানতে চাইলে মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম জানান, মাদারীপুরে যিনি প্রশ্ন ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দিয়েছেন সেই জন লিটন বৈরাগী সিএসসি নামের একটি এনজিওতে খুলনায় কর্মরত। এই বিষয়ে আমি শিক্ষা সচিব সোহরাব হোসেন স্যারের সাথে কথা বলেছি। তিনি জানিয়েছেন যে, মাদারীপুরে প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের যে ধরা পড়েছে সে শুধু বাহক মাত্র, মূল প্রশ্ন ফাঁসকারী বা হোতা নয়। তাই মাদারীপুরে যিনি প্রশ্ন ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দিয়েছেন সেই জন লিটন বৈরাগী শিক্ষামন্ত্রণালয় ঘোষিত ৫ লাখ টাকা হয়তো পাবেন না, তবে তাকে কিছু পুরস্কার দেয়া হবে।

QR Code - Take this post Mobile!
Use this unique QR (Quick Response) code with your smart device. The code will save the url of this webpage to the device for mobile sharing and storage.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *